শ্রেণীকক্ষেই পাঠদান সম্পন্ন করতে নতুন কারিকুলামের খসড়া অনুমোদন

0
733

আমারসিলেট ডেস্কঃ শ্রেণীকক্ষেই পাঠদান সম্পন্ন করার ব্যবস্থার নতুন কারিকুলামের খসড়া চূড়ান্তভাবে অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় শিক্ষাক্রম সমন্বয় কমিটি (এনসিসিসি)। সোমবার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে আয়োজিত সভায় সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি।

সভা সূত্রে জানা গেছে, মাধ্যমিক পর্যায়ে ষষ্ঠ শ্রেণীর সারাদেশে ৬১টি স্কুল, কারিগরি ও মাদ্রাসায় পাইলটিং শুরু করা হয়েছে। সেসব বিষয়ে বিদ্যালয়ে পাইলটিং ক্লাস ভালভাবে চলছে বলে তুলে ধরা হয়। নতুন কারিকুলাম বিষয়ে কোন পরিমার্জন বা পরিবর্তন প্রয়োজন আছে কিনা সে বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী জানতে চাইলে কয়েকটি শব্দগত পরিবর্তন ছাড়া আর কোন প্রস্তাব আসেনি। সে কারণে নতুন কারিকুলামের খসড়া চূড়ান্তভাবে অনুমোদন দেয় জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা-২০২১ অনুমোদন সংক্রান্ত শিক্ষাক্রম বিষয়ক উপদেষ্টা কমিটিও এনসিসিসির সদস্যরা। এটি বাস্তবায়নের ফলে, মাধ্যমিক পর্যন্ত থাকছে না কোন বিভাগ-বিভাজন। ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণীর সবাইকে পড়তে হবে ১০টি বিষয়। দশম শ্রেণীর পাঠ্যসূচীর ওপরই অনুষ্ঠিত হবে এসএসসি পরীক্ষা। একাদশ শ্রেণীতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের বিভাগ পছন্দ করতে হবে। একাদশ শ্রেণী শেষে পরীক্ষা এবং দ্বাদশ শ্রেণী শেষে পরীক্ষা নেয়া হবে। এ দুই পরীক্ষার ফলের সমন্বয়ে তৈরি হবে এইচএসসির ফল।

এ ছাড়া প্রাথমিকে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত কোন পরীক্ষা থাকছে না। চতুর্থ থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত পড়তে হবে আটটি বই। তবে সব শ্রেণীতেই শিখনকালীন মূল্যায়নেই বেশি জোর দেয়া হয়েছে। বর্তমান পদ্ধতিতে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষা থাকছে না। চলতি বছর মাধ্যমিক স্তরের ষষ্ঠ শ্রেণীর পাইলটিং শুরু হয়েছে। আগস্টে প্রাথমিকের প্রথম শ্রেণীর পাইলটিং শুরু করা হবে বলে জানা গেছে।

২০২৩ সালে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণী এবং ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে শিক্ষাক্রম বাস্তবায়ন শুরু করা হবে। ২০২৪ সালে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণী এবং অষ্টম ও নবম শ্রেণী এ শিক্ষাক্রমের আওতায় আসবে। ২০২৫ সালে পঞ্চম ও দশম শ্রেণী যুক্ত হবে। ২০২৬ সালে একাদশ ও ২০২৭ সালে দ্বাদশ শ্রেণী যুক্ত হবে। এ শিক্ষাক্রম অনুমোদন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

জানতে চাইলে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের সদস্য (কারিকুলাম) অধ্যাপক মশিউজ্জামান বলেন, নতুন কারিকুলামের খসড়া পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দিয়েছে। এখন এটি বাস্তবায়নে আর কোন বাধা নেই। আগামী বছর থেকে ধাপে ধাপে তা বাস্তবায়ন করা হবে। বর্তমানে মাধ্যমিকের পাইলটিং ক্লাস চলছে। সেসব বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে পরিবর্তন লক্ষ্য করা গেছে। শিক্ষামন্ত্রী নিজেও কয়েকটি বিদ্যালয়ে গেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষকদের অনুরোধ করে সেসব বিদ্যালয়ে পাঠিয়েছিলেন। সবাই ইতিবাচক বলে জানিয়েছেন। তিনি বলেন, নতুন কারিকুলামের ভাষাগত কয়েকটি বিষয় ছাড়া তেমন কোন পরিবর্তন আনা হয়নি। সবাই সেটি অনুমোদন দেয়ায় চূড়ান্ত করা হয়েছে। সে কারণে আজকের সভা আয়োজন করা হয় বলেও জানান তিনি।

সভায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মোঃ আবু বকর ছিদ্দীক, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সচিব মোঃ আমিনুল ইসলাম খান, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মশিউর রহমান, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ ও বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন।