শ্রীমঙ্গলে গৌরবের ৫২ বছরে মহান বিজয় দিবস পালিত

0
119

আমার সিলেট রিপোর্ট: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলায় যথাযোগ্য মর্যাদায় ও নানা আয়োজনে গৌরবের ৫২ বছরে মহান বিজয় দিবস পালিত হয়েছে। দিনটি উপলক্ষে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে বিজয় দিবসের কার্যক্রমের শুভ সূচনা করা হয়।

শনিবার (১৬ ডিসেম্বর) প্রথম প্রহরে পৌর শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা উপাধ্যক্ষ ড. মো: আব্দুস শহীদ এমপি। পরে উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ, বিজিবি, র্যাব ও আনসারসহ বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

পরে পৌর শহীদ মিনারে বিভিন্ন সংবাদকর্মীদের সংগঠন শ্রীমঙ্গল প্রেস ক্লাব, শ্রীমঙ্গল অনলাইন প্রেস ক্লাব,শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাব, মানবাধিকার সংগঠনগুলোসহ সরকারি আধা সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বিশেষ করে উপজেলা আওয়ামীলীগ, যুবলীগসহ আ’লীগের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠন, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এ সময় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তা সহ হাজারো দর্শকরা উপস্থিত ছিলেন।

পরে সকাল ৯টায় উপজেলা চত্বরে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে আনুষ্ঠানিকভাবে শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।

এতে পুলিশ, আনসার-ভিডিপি, বিএনসিসি, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বাংলাদেশ স্কাউট, গার্লস গাইড, এবং শিশু-কিশোর কর্তৃক কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়।

দিবসটি উপলক্ষ্যে সব সরকারি, বেসরকারি ও আধাসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। সবশেষে বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে পৌরসভার মাঠে খেলাধুলার আয়োজন করা হয় এবং রাত আটটায় শ্রীমঙ্গল চৌমোহনায় উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও বিজয়ের গান অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়া দিবসটি উপলক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে দুপুর ১২টার দিকে উপজেলা মাঠে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান ও বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং শহীদ পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়।
বিভিন্ন মসজিদ, মন্দির, গির্জাসহ বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে দোয়া-মোনাজাত ও প্রার্থনা করা হয়। একই দিন দুপুরে শিশু পরিবারের মধ্যে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়।

এছাড়াও বিজয় দিবস উপলক্ষে তরুণদের একটি স্বেচ্ছাসেবক টিম শ্রীমঙ্গল রক্তদান সমাজকল্যাণ সংস্থা’র উদ্যোগে- শ্রীমঙ্গল পৌরসভা মাঠে ফ্রি রক্তের গ্রুপ নির্ণয় ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হয়। এতে শতাধিক লোকের রক্তের গ্রুপ পরীক্ষা করে ফলাফল জানিয়ে দেওয়া হয়।

অপরদিকে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে স্থানীয়রা দিনটিকে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করছে।