শ্রীমঙ্গলে নিখোঁজের ৩য় দিনে কিশোরীর লাশ উদ্ধার,রহস্যের খুঁজে পুলিশ

0
622
শ্রীমঙ্গলে নিখোঁজের ৩য় দিনে কিশোরীর লাশ উদ্ধার,রহস্যের খুঁজে পুলিশ

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার মির্জাপুর এলাকার কামাসি গ্রামের ১১ বছর বয়সী চতুর্থ শ্রেণীর এক কিশোরী ছাত্রী নিখোঁজের তৃতীয় দিনে ধর্ষণের আলামতসহ তার মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সন্দেহজনক এই হত্যাকাণ্ডের মুল রহস্য উদঘাটন ও হত্যাকারীর খুঁজে দ্রুত কাজ করছে পুলিশ।

স্থানীয় সুত্র, নিহত ছাত্রীর মা ও বোনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, শুক্রবার ১৯ নভেম্বর বিকাল চারটায় স্থানীয় শমসেরগঞ্জ বাজারে নিজ ঘরের জন্য বাজার সদাই আনতে গেলে সে আর ফিরে আসেনি।

আরও জানা যায়,ঘটনার দিন বিভিন্ন স্থানে খোঁজ করে পরের দিন শনিবার এলাকায় মাইকিং করে কোন সন্ধান পাইনি তারা।পরে তৃতীয় দিনে রবিবার ২১ নভেম্বর সকাল ১১ টায় পার্শ্ববর্তী এলাকা ছাত্রাভাট এর নিকটবর্তি রুপাইছড়া রাবার বাগানে স্থানীয়দের সংবাদে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে।এ সময় শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশের বিভিন্ন কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

এক প্রশ্নের উত্তরে নিহত ছাত্রীর বড় বোন বিউটি আক্তার বলেন,”শমসেরগঞ্জ বাজার থেকে একটি পালসার মোটর সাইকেলে পিছনে বসে যেতে দেখা গেছে বলে চটপটি দোকানদার ও বাগান শ্রমিকদের থেকে জানা গেছে”।

তবে লাশ পাওয়া গেছে ভিন্ন এলাকায়,তিনি বলেন,আমার বোনটি খুব হাসি খুশীতে থাকতেন অবুজ বাচ্চাটিকে ধর্ষণ করে হত্যা করা হয়েছে তিনি দাবী করেন। লাশ উদ্ধারের আলামত সম্পর্কে তিনি কিছু পারিপার্শ্বিক আলামতের বর্ণনা দিয়ে এ কথা বলেন,তবে কে বা কারা এই ঘৃণ্য কাজ করেছে তা জানা নেই এবং সন্দেহ করার মতো কেহ নেই।

নিহত ছাত্রীর মা কুলসুম বেগম জানান,তিন মেয়ে ও এক ছেলের মাতা তিনি। মেয়েটি সবার ছোট এলাকায় তার কোন দুশমন নেই তবে মেয়ের বাবার (ময়নু ইসলামের) সাথে টাকা পয়সা নিয়ে একটি পক্ষের সাথে দ্বন্দ্ব রয়েছে সে দ্বন্দ্বের কারণে দুই-একদিনের ভিতরে বিচার সালিশের কথা ছিল কিন্তু তারা এমন করেছে সে অভিযোগ তিনি করেননি বা কাউকে সন্দেহ ও করেননি বলে জানিয়েছেন এ প্রতিবেদককে।

পুলিশের একটি সূত্রে জানা যায়, লাশ উদ্ধারকৃত স্থান রাবার বাগানে নিহত ছাত্রির পায়ের জুতা পরিপাটি করে রাখা এবং শরীরের কাপড় অর্ধাংশ খোলা দেখা গেছে এতে ধর্ষণের আলামত দেখা গেলেও পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও তদন্ত ছাড়া কিছু বলা যাবে না।

এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হুমায়ুন কবির,লাশ উদ্ধারের সত্যতা স্বীকার করে বলেন,লাশ ময়না তদন্তের জন্য প্রেরণ করা হয়েছে,ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে তাদের পরামর্শে মৃত্যু নিয়ে মুল রহস্য উদঘাটনে আমরা কাজ করছি।আশা করি দ্রুত জানা যাবে এবং অপরাধীদের শনাক্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে,এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।