শ্রীমঙ্গলে শিশু সন্তানকে বাবা-মা কর্তৃক বিষ খাইয়ে হত্যার অভিযোগ

0
54
শ্রীমঙ্গলে শিশু সন্তানকে বাবা-মা কর্তৃক বিষ খাইয়ে হত্যার অভিযোগ

আমার সিলেট রিপোর্ট: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে আড়াই বছরের মেয়ে শিশু সন্তান ফারিয়া আক্তার (আড়াই বছর) কে বাবা-মা কর্তৃক বিষ খাইয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শিশু টি প্রতিবন্ধী ছিল বলে প্রাথমিক তথ্যে জানা গেছে।
শিশুটির পিতার নাম রাশেদ মিয়া পিতা ফয়জল মিয়া, মাতার নাম শাপলা বেগম পিতা ওয়াসিত মিয়া গ্রাম রাজপাড়া, ভুনবীর ইউনিয়ন শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার।
শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশের সূত্রে জানা গেছে-আজ শুক্রবার ১৭ মে বিকাল সাড়ে চারটার দিকে বাচ্চাটিকে বিষ প্রয়োগ করা হয়, বিষ প্রয়োগের পর প্রথমে শ্রীমঙ্গল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরবর্তীতে সেখান থেকে মৌলভীবাজার ২৫০ জেলা বিশিষ্ট হাসপাতালে নেওয়ার পথে রাস্তায় শিশু টি মৃত্যুবরণ করেন।
মৃত্যুবরণ করার পর তাকে নিয়ে ফেরত বাড়িতে চলে আসে এবং দাফন কাফনের চেষ্টা করে কিন্তু ইতিমধ্যে বিষ খাওয়নোর সংবাদটি এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে।
স্থানীয় মাধ্যম থেকে সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে শিশুটির মা-বাবা ও নানীকে ঘটনাস্থলে পাওয়া যায়নি। স্থানীয়রা জানিয়েছেন তারা পালিয়ে গেছে। তবে এ সময় শিশুটি নানা ওয়াসিত মিয়াকে পাওয়া যায়।
থানা পুলিশের সূত্রে আরো জানা যায়, এ ঘটনার ব্যাপারে শিশুটির নানাও প্রাথমিকভাবে মৌখিক ভাবে অভিযোগ করে এবং লিখিতভাবে থানায় মামলা করার প্রস্তুতির নিচ্ছে। সংবাদ লেখা কালীন সময়ে শিশুটির নানা থানা কমপ্লেক্সে উপস্থিত ছিলেন।
এ বিষয়ে শিশির নানা সাথে কথা হলে তিনি বলেন আমার একটি ছোট ছেলে ১০ বছর বয়সি সে আমাকে বিষ খাওয়ানোর সংবাদটি দিয়েছে তবে আমি নিজে দেখিনি আমি দু তলায় ছিলাম। এ ব্যাপারে তিনি থানায় মামলা করবেন বলে জানিয়েছেন।
ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও লাশ উদ্ধার করার সময় উপস্থিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল থানার উপ পরিদর্শক (তদন্ত ওসি) আমিনুল ইসলাম সেলিম, আরো উপস্থিত ছিলেন এসআই আমিনুল ইসলামসহ পুলিশের একটি টিম।
শ্রীমঙ্গল থানার তদন্ত কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম জানান, সংবাদ পেয়ে আমরা লাশ উদ্ধার করেছি, সুরতহাল রিপোর্ট লিপিবদ্ধ করেছি, আলামত জব্দ করেছি, ময়না তদন্তের জন্য মৃতের লাশ পোস্টমর্টেম এ পাঠানো হবে এবং অভিযোগের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এক প্রশ্নের যেভাবে তিনি বলেন শ্রীমঙ্গল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পূর্বে আমাদেরকে কোন তথ্য দেয়নি তবে আমি সংবাদ নিয়েছি তারা জানিয়েছে যে বাচ্চাটি কেরোসিন খেয়েছে বলে অভিভাবকরা জানিয়েছে এজন্য উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে মৌলভীবাজার প্রেরণ করা হয়েছে।
তবে মৃতদেহের সাথে আসা এক ব্যক্তি জানান বাচ্চাটির প্রাথমিক চিকিৎসার শ্রীমঙ্গল হাসপাতালে করলে সে হয়তো মারা যেত না, তারা চিকিৎসা না করেই বলেই বাজারে রেকর্ড করে দেন বলে শুনেছি। তবে এ ঘটনার ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।
প্রসঙ্গত শিশুটির পিতা-মাতা একে অপরের চাচাতো ভাই।