শ্রীমঙ্গল পুলিশের শ্বাসরুদ্ধকর অভিযানে দুর্গাবাড়ির চোৱাইকৃত মালামাল উদ্ধার আটক-৩

0
622
শ্রীমঙ্গল পুলিশের শ্বাসরুদ্ধকর অভিযানে দুর্গাবাড়ির চোৱাইকৃত মালামাল উদ্ধার আটক-৩


নিজস্ব প্রতিনিধি: শ্রীমঙ্গল শহরের মৌলভীবাজার রোডস্থ হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের দুর্গা মন্দিরের বিভিন্ন মালামাল চুরির ঘটনায় শ্রীমঙ্গল পুলিশের যৌথ অভিযানে মালামাল উদ্ধার ও চোরদের সিণ্ডিকেট শনাক্ত করে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে।

পুলিশের সূত্রে জানা যায়,২ নভেম্বর মঙ্গলবার রাতের প্রথম প্রহরে শ্রীমঙ্গল থানাধীন শ্রীশ্রী সার্বজনীন দুর্গাবাড়ি মন্দির, মৌলভীবাজার রোডে অজ্ঞাত চোরেরা মন্দিরের ষ্টোর রুম হতে পিতলের দূর্গার কলস ১টি,পিতলের কালিমার ঘট ১টি,পিতলের বড় থালি ২টি,পিতলের ছোট ঘালি ১০টি,মধু কর্পের কাসার বাটি ১০টি,জল/শংক/ত্রিপদী ২ প্রস্থ, ছিপকুশা ২ প্রস্থ,পিতলের পুষ্প থালি বড় ১টি, ছোট একটি,পিতলের পানদান থালি ১টি,পিতলের জনদান গ্লাস ১০ টি,কাসা ১টিসহ আরো অন্যান্য মালামাল চুরি করিয়া নিয়া যায়।

ঘটনার প্রেক্ষিতে উক্ত মন্দির কমিটির সহ-সভাপতি নারায়ন চক্রবর্তীর দায়েরকৃত অভিযোগের ভিত্তিতে শ্রীমঙ্গর থানার মামলা নং-৬, তারিখ-০২/১১/২০২১ইং, ধারা-৪৫৭/৩৮০ পেনাল কোড রুজু হয়।

আটক টুকাই কিশোর গ্যাংয়ের তিন সদস্য

ঘটনার ব্যাপারে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়,”অজ্ঞাতনামা চোরেরা চুরি করে যাওয়ার সময় উক্ত মন্দিরের নিরাপত্তায় ব্যবহৃত সিসিটিভির ডিভিআর মেশিনটি নিয়ে যাওয়ায় ঘটনায় মূল রহস্য উদ্ঘাটনসহ মালামাল উদ্ধারে হতাশা জাগে সবার মনে। কিন্তু থেমে নেই শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ। নেমে পড়ে ঘটনার মূল রহস্য উদ্ঘাটনসহ মালামাল উদ্ধার ও আসামী গ্রেফতারের চেষ্টায়।

টিম শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশের অভিযানে নেতৃত্ব দেয় সহকারী পুলিশ সুপার, শ্রীমঙ্গল সার্কেল, মোঃ শহিদুল হক মুন্সি, শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শামীম অর রশিদ তালুকদার, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ হুমায়ুন কবির, পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) নয়ন কারকুন, এসআই মোঃ জাকির হোসেন, এএসআই ইলিয়াছ সোহেল, এএসআই আব্দুর হান্নান।

ঘটনা প্রকাশের পর দীর্ঘ প্রায় ৮ ঘন্টা শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান শেষে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ চোরদের আটক করতে সক্ষম হয়। তারা হলো,কিশোর অপরাধী বন্দর উরুপে বন্ধন ও সহযোগীরা।

বন্ধনকে প্রাথমিক ভাবে জিজ্ঞাসাবাদের পর সে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে এবং চোরাই মালামাল মৌলভীবাজার সদর থানাধীন ২নং পুল এলাকার একটি ভাঙ্গারী দোকানে বিক্রির কথা স্বীকার করে। তাহার স্বীকারোক্তি মতে মৌলভীবাজার সদর থানাধীন ২নং পুল এলাকার মেসার্স ছেতু মিয়া ষ্টোর নামক একটি ভাঙ্গারী দোকান হইতে চোৱাই হওয়া সকল মালামাল উদ্ধার করা হয়। ঘটনায় জড়িত অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত আছে।

এ ব্যাপারে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হুমায়ুন কবির বলেন আমরা মূলত কোন তথ্য পাচ্ছিলামনা, ঘটনাস্থল থেকে দূরবর্তী একটি সিসি ক্যামেরায় সামান্যতম রেকর্ড এর সূত্র ধরে শহরব্যাপি পুলিশের চিরুনি তল্লাশির মধ্যে একজনকে আটক করা হয় এবং তার থেকে ঘটনার সত্যতা পেয়ে বাকি পথশিশুদের আটক করা হয়েছে এবং মালামাল উদ্ধার করেছি এ ঘটনায় জড়িত অন্যান্যদের কেও আটক করার চেষ্টা চলছে।