সংলাপের পথ রুদ্ধ করার সামিল:যুব মৈত্রী

    0
    241

    আমার সিলেট  24 ডটকম,অক্টোবরবাংলাদেশ যুব মৈত্রীর সভাপতি মোস্তফা আলমগীর রতন ও সাধারণ সম্পাদক সাব্বাহ আলী খান কলিন্স এক বিবৃতিতে দেশব্যাপী ৬০ ঘণ্টা হরতালের নামে বিএনপি-জামাত যে তাণ্ডব ও ধ্বংসলীলা চালাচ্ছে তা অত্যন্ত দুঃখজনক ও অনাকাংখিত। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, বিরোধীদলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়ার বেঁধে দেয়া ৪৮ ঘণ্টা সময়ের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন ফোনালাপ করেন ও হরতাল হত্যাহারের আহ্বান জানান তখন তা না মেনে হরতাল চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা, সংলাপের পথ রুদ্ধ করার সামিল ও সংকট নিরসনে তার আন্তরিকতা কতটুকু তা প্রশ্নবিদ্ধ করে।

    নেতৃবৃন্দ বলেন, হরতালের নামে আজ সকাল থেকেই গাড়ী ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ, বোমা নিক্ষেপ, পুলিশের উপর আক্রমণ, সাধারণ মানুষের উপর হামলা, জান-মালের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে চলেছে জামাত-শিবির চক্র। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপি-জামাতসহ ১৮ দলের সমাবেশে জামাতের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে গঠিত বিশেষ ট্রাইব্যুনাল নিয়ে যেমন অমূলক প্রশ্ন উত্থাপন করেছে তেমনি যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষায় সর্বাত্মক ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপের নির্দেশ দিয়েছে। এর মধ্যদিয়ে তারা যুদ্ধাপরাধীদেরকে রক্ষা করতে চায়। দেশকে অগণতান্ত্রিক পন্থার দিকে ঠেলে দিতে চায়।

    নেতৃবৃন্দ বলেন প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধী দলীয় নেত্রীর সংলাপ ও প্রয়োজনীয় উদ্যোগই এই সংকট থেকে দেশকে রক্ষা করতে পারে। নেতৃবৃন্দ জানমালের নিরাপত্তার স্বার্থে ও গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে অব্যাহত রাখতে প্রশাসন ও আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীকে আরও বেশি সক্রিয় হওয়ার আহ্বান জানান। নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশ যুব মৈত্রীর সারাদেশের নেতা-কর্মীরা যাতে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের জনগণকে সাথে নিয়ে সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা, তাদের মনে স্বস্তি ও শান্তি প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধভাবে পাড়া-মহল্লা ও এলাকায়-এলাকায় শান্তি মিছিল করার জন্য সর্বাত্মক উদ্যোগ গ্রহণ করে তার জন্য আহ্বান জানান।