সকল শুভকর্ম সম্পাদিত হয়েছে নারী পুরুষের সম্মিলিত প্রয়াসে

    0
    203

    আমারসিলেট24ডটকম,১৯ডিসেম্বর,আবুল হোসেনপ্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক তাহমিনা খাতুন বলেছেন, পৃথিবীর সকল শুভকর্ম সম্পাদিত হয়েছে নারী ও পুরুষের সম্মিলিত প্রয়াসের মাধ্যমে। প্রতিটি বাঙ্গালীর শ্রেষ্ঠ অনুপ্রেরণা তাঁর “মা”। দেশ মাতৃকার জন্য আমরা যেমন লড়াই করেছি,তেমনি মায়ের ভাষার জন্য আমাদের লড়াই করতে হয়েছে। সুতরাং “মা” মায়েদের দায়িক্ত অনেক বড়।

    তিনি আরও বলেন, বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষায় শতভাগ উপস্থিতি ও শতভাগ কৃতকার্য হতে হলে অভিভাবক বিশেষ করে মায়েদের ভূমিকা সর্বাগ্রে। বর্তমান সরকার শিক্ষা বান্ধব সরকার। তাই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভাল ফলাফল অক্ষুন্ন রাখতে মা”দের বিশেষ ভাবে সন্তানদের প্রতি নজর রাখতে হবে।

    তিনি বলেন, সুশিক্ষার জন্য সন্তাদের প্রতি মায়েদের যেমন কর্তব্য রয়েছে, তেমনি শিক্ষক ও সমাজপতিদেরও দায়িত্ব রয়েছে। আধুনিক বিশ্বে সবচেয়ে বড় সম্পদ হলো জ্ঞান।

    তিনি বলেন,জ্ঞান অর্জিত হয় শিক্ষার মাধ্যমে। প্রাথমিক শিক্ষা হচ্ছে শিক্ষার মূলভিত্তি। প্রাথমিক শিক্ষার মূলভিত্তিকে মজবুত করতে পারলে পরবর্তী শিক্ষা মজবুত ভিত্তির ওপর সুদৃঢ়ভাবে প্রতিষ্ঠিত থাকবে। দেশ ও জাতি দ্রুত উন্নতির দিকে অগ্রসর হবে।

    গতকাল বুধবার রাত ৮টায় কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার লাচুখাল বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত এক বিরাট মা ও অভিভাবক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথাগুলো বলেন।

    প্রধান অতিথির বক্তব্যে তাহমিনা খাতুন আরও বলেন, মর্যাদাশীল জাতি হিসেবে আমরা বিশ্ব দরবারে শির উঁচু করে টিকে থাকতে হলে শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। তাই যতদিন কাঙ্খিত প্রাথমিক শিক্ষার গুণগত মানোন্নয়ন না হয়, ততদিন আমাদের সবাইকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে নিরলসভাবে কাজ করে যেতে হবে।

    তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা যাতে বাড়িতেও নিয়মিত পড়ালেখা করে, ছুটির দিনগুলোতেও অযথা যেন সময় নষ্ট না করে বাসার পড়াগুলো সম্পন্ন করতে পারে এসব বিষয়ে মায়েদের লক্ষ্য রাখতে হবে।

    তিনি বলেন , বাংলাদেশে বর্তমানে প্রাথমিক শিক্ষার বাহ্যিক উন্নতি ইতোমধ্যে যথেষ্ট হয়েছে। সুন্দর সুন্দর ভবন নির্মিত হচ্ছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে ভর্তির হার আগের তুলনায় বেড়েছে; কমেছে ঝরেপড়ার হার। প্রাথমিক শিক্ষায় সমাপনী পরীক্ষার পাসের হার প্রায় শতভাগ। প্রাথমিক শিক্ষার্থীরা প্রাথমিক শিক্ষার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যগুলো অর্জন করতে পারলেই ধরে নেয়া যায় শিক্ষার গুণগত মান কতটুকু উন্নতি হয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষার সার্বিক উন্নয়নে বাংলাদেশ সরকার বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেছে। প্রাথমিক শিক্ষার সঙ্গে সংশি¬ষ্ট শিক্ষা কর্মকর্তারা, শিক্ষক, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি, অভিভাবক, জনপ্রতিনিধি সবারই দায়িত্ব ও কর্তব্য রয়েছে প্রাথমিক শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়নের জন্য।

    বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুল মনাফের সভাপতিত্বে ও সাংবাদিক আবুল হোসেন এবং মিজানুর রহমানের পরিচালনায় সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শরদিন্দু দাস, ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর স্বদেশ চন্দ্র পাল, উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক মলাই মিয়া। বক্তব্য রাখেন লাচুখাল যুব সংঘের সভাপতি এনামুল হক, সাধারণ সম্পাদক জুনায়েদ ভুইয়া, মখলিছুর রহমান, ওয়াজ উদ্দিন, মোজাম্মেল হক, দিদার আহমদ, এলাকার মুরব্বী রফিকুল ইসলাম, সাবেক মেম্বার মঈন উদ্দিন, বীরমুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান, ইসমাইল আলী, আবুল কাশেম, ইলু মিয়া, আব্দুর রউফ, সামছু মিয়া প্রমুখ।