সিলেটে বহিরাগত সন্ত্রাসীরা এ কাণ্ড ঘটিয়েছেঃছাত্রলীগ সভাপতি

    0
    272

    আমারসিলেট24ডটকম,২১নভেম্বরঃ ছাত্রলীগের সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ বলেছেন, বৃহস্পতিবার সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে তাতে ছাত্রলীগের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। বহিরাগত সন্ত্রাসীরা এ কর্মকাণ্ড ঘটিয়েছে। তাই এই সংঘর্ষের দায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগ নেবে না।  মিডিয়া ছাত্রলীগকে জড়িয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে বলেও অভিযোগ তার।

    আজ শুক্রবার সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে এক সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রলীগ সভাপতি এসব দাবি করেন।

    সংবাদ সম্মেলনে সোহাগ বলেন, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘটনার পেছনে দায়ী বহিরাগত সন্ত্রাসীরা। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেউ না। ছাত্রলীগের সঙ্গেও তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। যিনি মারা গেছেন তিনিও বহিরাগত।

    তবে ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, এই ঘটনার সঙ্গে ছাত্রলীগের কারো কোনো সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।  এই ঘটনার সঙ্গে যারা জড়িত তাদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন সোহাগ।

    তিনি আরও বলেন, ক্যাম্পাসে হত্যাকাণ্ড নতুন নয়। এর আগে অন্যান্য সময় অনেক হত্যাকাণ্ড হয়েছে। ক্যাম্পাস পরিস্থিতি আগের তুলনায় অনেক শান্ত আছে।

    লিখিত বক্তব্যে সোহাগ বলেন, শাবিপ্রবিতে নিহত সুমন ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিল না। সে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীও নয়।

    ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, আপনাদের মতো আমাদেরও প্রশ্ন কেন তিনি (সুমন) ক্যাম্পাসে এসেছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রমের পাশাপাশি ছাত্র রজানীতি করলে তা করবে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। বহিরগতরা ক্যাম্পাসে কেন আসবে?

    তিনি আরও বলেন, হত্যাকাণ্ডের দায় বরাবরের মতো কেন ছাত্রলীগে ঘাড়ে বর্তাবে। সুমনতো কোনো নিরীহ পথচারী ছিল না। সে সংঘর্ষে জড়িত ছিল। ওই সংর্ঘষের অন্যতম হোতা উত্তম কুমার ছাত্রলীগ থেকে অনেক আগেই বহিষ্কৃত। তার বিরুদ্ধে ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ককে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় মামলা রযেছে। তার বিরুদ্ধে পুলিশ প্রশাসন কেন ব্যবস্থা নেয়নি প্রশ্ন করেন তিনি।

    একের পর এক সংঘর্ষের ঘটনায় ছাত্রলীগের চেইন অব কমান্ড কি ভেঙে পড়েছে- এমন প্রশ্নের জবাবে ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, চেইন অব কমান্ড ঠিক আছে। বেশিরভাগ জায়াগায় সংঘর্ষে ছাত্রলীগ জড়িত না।

    সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামসুল কবির রাহাত, মোস্তাফিজুর রহমান মোশতাক, সাংগঠনিক সম্পাদক তরিকুল ইসলাম, আল মাহমুদ তারেক, দফতর সম্পাদক শেখ রাসেল, শাবিপ্রবির সাবেক আহ্বায়ক শামসুজ্জামান চৌধুরী, কেন্দ্রীয় নেতা এনামুল হক প্রিন্স প্রমুখ।

    উল্লেখ্য,শাবিপ্রবিতে বৃহস্পতিবার সকালে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত হন সুমন চন্দ্র ক্ষ্য,জানা যায় তিনি ছাত্রলীগ কর্মী ছিলেন। তিনি নগরীর সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির এলএলবি তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরসহ সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। যার মধ্যে দু’জন গুলিবিদ্ধ। সংঘর্ষ চলাকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুটি ছাত্র হল ও প্রক্টরের গাড়ি ভাংচুর করা হয়। খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ ক্যাম্পাসে গিয়ে রাবার বুলেট, শটগানের গুলি ও টিয়ার গ্যাসের শেল ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বৃহস্পতিবার সকালের এ ঘটনার পর দুপুরে জরুরি সিন্ডিকেট বৈঠকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

    একইদিন বিকেল ৪টা থেকে ছাত্রদের এবং আজ শুক্রবার সকাল ৯টার মধ্যে ছাত্রীদের হল ছাড়তে বলা হয়। তবে আগামী ২৫ নভেম্বর থেকে প্রথম বর্ষের ভর্তি প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে বলে জানা গেছে শাবিপ্রবি সুত্র থেকে।