স্ত্রীকে গলা টিপে হত্যা করে ২০ বছরের দাম্পত্য জীবনের অবসান! ঘটালো পাষন্ড স্বামী

0
69
স্ত্রীকে গলা টিপে হত্যা করে ২০ বছরের দাম্পত্য জীবনের অবসান! ঘটালো পাষন্ড এই স্বামী

এস এম সুলতান খান চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ)ঃ হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে আয়মনা আক্তার (৩৬) নামের এক গৃহবধূকে গলা টিপে হত্যার অভিযোগ ওঠেছে তার স্বামীর বিরুদ্ধে।
এ ঘটনায় অভিযুক্ত স্বামী আকছির মিয়া (৪০) কে (২৬মার্চ) রাত ৮টায় আটক করেছে পুলিশ। প্রাথমিক পর্যায়ে হত্যার দায় স্বীকার করেছে আটক স্বামী।
এর আগে মঙ্গলবার বিকেলের দিকে উপজেলার ৬নং সদর ইউনিয়নের রামশ্রী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে বলে থানার উপ-পরিদর্শক এস আই দেলোয়ার হোসেন জানিয়েছেন । তিনি বলেছেন, পারিবারিক কলহের জের ধরে এ হত্যার ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা যাচ্ছে।
স্থানীয়রা পুলিশকে সংবাদ দেওয়ার পর অভিযুক্ত আছকির মিয়াকে আটক করা হয়। নিহত আয়মনার সুরত হাল সম্পন্ন হয়েছে। মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে। নিহতর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, নিহত আয়মনা বেগম বাহুবল উপজেলার মিরপুর ইউনিয়নের খিলবামঐ গ্রামের ওয়াছ উল্ল্যার মেয়ে।
প্রায় ২০ বছর পুর্বে চুনারুঘাট সদর ইউনিয়নের রামশ্রী গ্রামের মৃত মনজুব আলীর পুত্রের সাথে বিবাহ হয়। তাদের দাম্পত্য জীবনে ৪ ছেলে ২ মেয়ে জন্মগ্রহণ করে। নিহতর ভাই ওস্তার মিয়া জানায়, আমার বোনের ওপর যৌতুকের জন্য নানাভাবে নির্যাতন চালিয়ে আসছিল তার স্বামী আকছির মিয়া। ওই নির্যাতনের ধারাবাহিকতা মঙ্গলবার বিকেলে আয়মনাকে গলা টিপে হত্যা করে আছকির । আমি এ হত্যার বিচার চাই।
আয়মনার বড় মেয়ে আরিফা জানায়, কয়েকদিন ধরে বাবা মায়ের সাথে ঝগড়া করছে। মঙ্গলবার বিকেল অনুমান ৪টায় বাবা কাজে যাওয়া নিয়ে বাবার সাথে মায়ের ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে বাবা মা’কে বুকে ঘুষি ও দুই হাত দিয়ে গলা চেপে ধরলে মা অচেতন অবস্থায় মাটিতে পরে গিয়ে মায়ের মৃত্যু হয়। পরে বাবা মা’কে হাসপাতালে নেওয়ার জন্য গাড়ি খুঁজতে থাকেন। এসময় আমরা মায়ের অবস্থা দেখে কান্নাকাটি করলে আশপাশের লোকজনের সন্দেহ হলে থানা পুলিশ কে সংবাদ দেয়। পরে পুলিশ এসে বাবাকে ধরে নিয়ে যায় ।
এ ঘটনায় আয়মনার ভাই ওস্তার মিয়া বাদী হয়ে চুনারুঘাট থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ হিল্লোল রায় রাত ৯টায় বলেন, ‘আয়মনার মরদেহ উদ্ধার করে সুরতহাল করা হয়েছে।’ ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে মর্গে পাঠানো হবে। অভিযুক্ত স্বামীকে আটক করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে স্ত্রীকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে। এ ব্যাপারে পরবর্তী আইনি কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।