স্পেনে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত

    0
    219

    হোসাইন  ইকবাল,স্পেন থেকেঃ  ১৫ আগস্টের এই দিনে যথাযথ মর্যাদায়, শোক ও শ্রদ্ধার মধ্য দিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের  ৪৪ তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করেছে মাদ্রিদসস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস।

    এ উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রদূত প্রবাসী বাংলাদেশি ও দূতাবাসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের উপস্থিতিতে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করে দিনের কর্মসূচী শুরু করেন। এরপর জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। সকাল ১১টায় দূতাবাস হলরুমে এ উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়ার আয়োজন করা হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হাসান মাহমুদ খন্দকার। মিনিস্টার ও দূতালয় প্রধান এম হারুণ আল রাশিদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শুনান বাণিজ্যিক সচিব রেদওয়ান আহমেদ ও প্রথম সচিব (শ্রম) মোহাম্মদ শরিফুল ইসলাম।

    প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত হাসান মাহমুদ খন্দকার গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ও ঘাতকের বুলেটের আঘাতে সেদিন নিহত বঙ্গবন্ধু পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শুধু বাঙালি জাতির নেতা ছিলেননা, তিনি ছিলেন বিশ্বের শোষিত মানুষের নেতা। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, চিন্তা ও চেতনায় ছিলো একটি শোষণ মুক্ত, ক্ষুধা ও দারিদ্র্য মুক্ত সমাজ গড়ে তোলা। তিনি বাঙালি জাতিকে একটি স্বাধীন দেশ দিয়ে গেছেন, এখন আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দেশের জন্য কাজ করে বঙ্গবন্ধু স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে হবে।

    জাতির জনকের সুযোগ্যা কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল। বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশ একটি উন্নত সমসমৃদ্ধ জাতি হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। এসব অর্জন ধরে রাখায় দেশে এবং প্রবাসে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহবান জানান তিনি।

    অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্পেইন আওয়ামী লীগের নবগঠিত আহবায়ক কমিটির আহবায়ক এস আর আই এস রবিন, যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল কাইউম সেলিম, বাংলাদেশ এসোসিয়েশনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জহিরুল ইসলাম নয়ন, সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান সুন্দর, স্পেইন আওয়ামী লীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দের মধ্যে ছিলেন শেখ আব্দুর রহমান, একরামুজ্জামান কিরন, বদরুল আলম, বোরহান উদ্দিন, রিজভী আলম, আইয়ুব আলীসোহাগ, দবির তালুকদার, এফ এম ফারুক পাভেল, শ্যামল তালুকদার, তামিন চৌধুরী, শামীম আহমেদ, ইফতেখার আলম, ইসমাইল হোসেন রায়হান, আবুল হোসেনসহ আরও অনেকে।

    এছাড়াও সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের মধ্যে ছিলেন  একেএম জহিরুল ইসলাম, বকুল খান, সাহাদুল সোহেদ,  ইব্রাহিম খলিল, ফখরুদ্দিন রাজি, কবির আল মাহমুদ , হানিফ মিয়াজি।