হরতাল অবরোধের নামে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বানচাল করার চক্রান্ত:ওয়ার্কার্স পার্টি

    0
    195

    আমারসিলেট24ডটকম,৩০জানুয়ারীআগামী ১০ ফেব্রুয়ারী সারাদেশে সহিংসতা ও নাশকতা বিরোধী দিবস পালনের কর্মসূচী নিয়েছে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি। আজ পলিটব্যুরোর সভায় এই প্রস্তাব নেয়া হয়। সভায় বলা হয়, গত ৫ জানুয়ারী বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া কর্তৃক বিএনপি-জামাত জোট নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ডাকা অনির্দিষ্টকালের অবরোধ ঘোষণার পর এযাবৎ ৪১ জন যাত্রী পেট্রোল ও ককটেল বোমায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। খালেদা জিয়ার তথাকথিত অবরোধ হরতালে জনগণের কোন সম্পৃক্ততা নেই। বরঞ্চ এটা জনগণের বিরুদ্ধেই আক্রমণ।

    মূলত: যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বানচাল করা ও বাধাগ্রস্থ করার জামাতের চক্রান্তই বাস্তবায়ন করা হচ্ছে এই অবরোধ কর্মসূচীর মাধ্যমে। আন্দোলনের নামে মানুষ মারার এই হিং¯্র নীতি কোন বিবেকবান মানুষের কাজ হতে পারে না। পলিটব্যুরো এই জঘন্য বর্বর কর্মসূচী থেকে খালেদা জিয়াকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছে। ওয়ার্কার্স পার্টি আগামী ২ ফেব্রুয়ারী থেকে অনুষ্ঠিতব্য এসএসসি পরীক্ষা যাতে ছাত্র ছাত্রীরা নির্বিঘেœ দিতে পারে, তার জন্য ঐ সময়কালে যে কোন রাজনৈতিক কর্মসূচী থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান হয়।
    পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সভায় পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে একটি রাজনৈতিক রিপোর্ট উত্থাপন করেন। রিপোর্টে চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে বলা হয়। নাশকতা ও সহিংসতা মোকাবেলায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কার্যক্রম থাকলেও নাশকতাকারীদের বিরুদ্ধে জনগণের প্রতিরোধ সংগঠিত করার উপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়।
    প্রস্তাবে বলা হয়, জামাতের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা এখন সময়ের দাবী। এবিষয়ে প্রয়োজনীয় আইন প্রণয়ন করে জামাতের বিচার শুরু করার জন্য দাবী করা হয়। পলিটব্যুরো সভায় আলোচনায় অংশ নেন আনিসুর রহমান মল্লিক, বিমল বিশ্বাস, কমরেড নুরুল হাসান, মাহমুদুল হাসান মানিক, শফিউদ্দিন আহমেদ, নুর আহমদ বকুল, ইকবাল কবীর জাহিদ, কমরেড হাজেরা সুলতানা, আমিনুল ইসলাম গোলাপ, কামরূল আহসান।