হরতাল অবরোধের নামে সন্ত্রাসী তৎপরতা মেনে নেওয়া যায় না

    0
    210

    আমারসিলেট টুয়েন্টিফোর ডটকম,ফেব্রুয়ারী আন্দোলনের নামে জ্বালাও পুড়াও, পেট্টল বোমায় নিরিহ যাত্রী পুড়িয়ে হত্যা, ১৫ লক্ষ এস.এস.সি পরীক্ষার্র্থীদের কথা না ভেবে হরতার অবরোধের নামে সন্ত্রাসী তৎপরতা কিছুতেই মেনে নেওয়া যায় না। ২০ দলীয় জোটের নামে সন্ত্রাসী বোমাবাজ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের নামে দেশে একাত্তরের ঘাতক জামাত শিবির চক্রকে দেশের রাজনীতিতে পুনর্বাসিত করার লক্ষে একের পর এক হরতাল অবরোধ দিয়ে যাচ্ছেন।

    যুদ্ধাপরাধিদের বিচার বানচাল করার জন্য বিশ দলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বিএনপির নেতৃত্ব বাদ দিয়ে জামাত শিবিরের নেতৃত্ব গ্রহন করেছেন। পাকিস্তানী কায়দায় দেশকে একটি অকার্যকর রাষ্টে পরিনত করার ষড়যন্ত্র করছেন। দেশের পেট্টল বোমা হামলায় নিরীহ যাত্রী হত্যা সহ সকল অপরাধের হুকুমের আসামী হিসাবে খালেদা জিয়াকে আইনের কাটগড়ায় দাড়াতে হবে। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে পেট্টল বোমায় ৮ জন যাত্রীর মধ্যে যশোহর জাসদ নেতা রাশেদুজ্জামান পাপলু ও তার মেয়ে মাইশাকে হত্যা করা হয়েছে।

    গতকাল ৭ ফেব্র“য়ারী শনিবার জেলা ও মহানগর জাসদের দেশব্যাপী জ্বালাও পোড়াও যোদ্ধাপরাধীদের রক্ষার আন্দোলনের নামে ২০ দলের অপকর্মের প্রতিবাদে বেলা ১১টায় সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচীতে সভাপতির বক্তব্যে জাসদের কেন্দ্রী সহ সম্পাদক মহানগর জাসদের সভাপতি এডভোকেট জাকির আহমদ একথা বলেন। মহানগর জাসদের সভাপতি এডভোকেট জাকির আহমদের সভাপতিত্বে মহানগর জাসদের দপ্তর সম্পাদক মোঃ আমিরুল ইসলাম চৌধুরী এহিয়ার পরিচালনায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জেলা জাসদ নেতা এডভোকেট রফিকুল হক বলেন জ্বালাও পোড়াও দিয়ে দেশের নিরীহ জনগণকে হত্যা করে এস.এস.সি পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষার সময় হরতাল অবরোধ দিয়ে ২০ দলীয় জোট দেশের জনগন ও ছাত্র সমাজের বিরেুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। ইসলামের আদর্শের কথা বলে বিশ্ব ইস্তেমার সময়ও ২০ দলীয় জোট নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া অবরোধ স্থগিত করেন নী।

    দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের স্বার্থে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী ১৪ দলীয় জোটের নেতৃত্বে ৭১এর ঘাতক যোদ্ধাপরাধীদের বিচার তরান্বিত করতে সহযোগীতার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহবান জানান। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে আন্দোলনের অপশক্তির বিরোদ্ধে জনমত গঠনে সকলকে এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন। তিনি বলেন যশোহরের জাসদ নেতা পাপলু ও তার মেয়ে মাইশা হত্যার মামলায় হুকুমের আসামী হিসাবে খালেদা জিয়াকেই বিচারের কাটগড়ায় দাড়াতে হবে।

    মানববন্ধন কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন মহানগর জাসদের সিনিয়র সহ-সভাপতি ফৌরদৌস আরবী, সহ-সভাপতি কামাল আহমদ চৌধুরী আলমগীর, সাধারণ সম্পদক নাজাত কবির, জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক লাল মোহন দেব, মহানগর যুগ্ম সম্পাদক গিয়াস আহমদ, কোম্পানীগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার নুর হোসেন, মহানগর আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক তপন মিত্র।

    জেলা স্বেচ্ছালীগের সহ-সভাপতি তপন পাল, যুক্তরাজ্য জাসদের সহ-সম্পাদক মাশুক হোসেন, ক্রীড়া সংগঠক আহমদ হোসেন চৌধুরী, জেলা সংখ্যালঘু বিষয়ক সম্পাদক অলক সেন, মহানগর কোষাধ্যক্ষ কামরুল ইসলাম দিপু, সহ সম্পাদক-আব্দুল বাছির বাছির বাদল, সহ সম্পাদক জহির রায়হান, মহানগর জাসদ নেতা মকবুল হোসেন, জেলা জাসদ নেতা হালিম আহমদ, শহীদুল ইসলাম খোকন, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হুমায়ূন কবির খান রাজিব, সাধারণ সম্পাদক নামজুল ইসলাম সাকিল, বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সভাপতি আশরাফুল ইসলাম, ছাত্রলীগ নেতা রুহুল আহমদ রুহেল, ফরহাদ আহমদ, রাজন পাল, ফারদিন আহমদ, কাওসার আহমদ প্রমুখ।

    সভায় আগামীকাল রোব্বার বেলা ৩টায় কোর্ট পয়েন্টে ১৪ দলের মানববন্ধন কর্মসূচীতে জেলা মহানগর জাসদের সকল নেতাকর্মীকে উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।