১০ম সংসদ নির্বাচনের সংশোধিত বিধিমালা প্রকাশ আজ

    0
    239

    আমার সিলেট  24 ডটকম,৩০অক্টোবর জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সংশোধিত আচরণ বিধিমালা প্রকাশ করা হবে আজ। কমিশনের এক বৈঠকের পর মঙ্গলবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমেদ এ তথ্য জানিয়েছেন। গতকাল সন্ধ্যায় নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান। তিনি বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আচরণ বিধিমালা চূড়ান্ত করা হয়েছে। বুধবার কমিশন বৈঠকের পর এ আচরণ বিধিমালা কমিশনের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। তিনি আরো বলেন, এখন নতুন একটি পদ্ধতির মাধ্যমে জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এতে নতুন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।
    কাজী রকিব বলেন, পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে সংবিধানের আলোকে নতুন নির্বাচনী আচরণ বিধিমালা তৈরি করা হচ্ছে। নির্বাচনকালীন অর্ন্তর্বতী সরকারের সময় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বদলীর ক্ষমতা ব্যবহার সম্পর্কে তিনি বলেন, আমরা ডেফিনিটলি ভালভাবে এ ক্ষমতা ব্যবহার করব। তবে এখন পর্যন্ত কোন কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ আসেনি। তিনি বলেন, কোন কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ থাকলে সুনিদিষ্ট আকারে কমিশনকে জানাতে হবে। তারপর অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হলে ওই কর্মকর্তা-কর্মচারীকে বদলী করা হবে।
    সিইসি বলেন, নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিষয়ে নজরদারি রাখা হচ্ছে। জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই একটি ভাল নির্বাচনের জন্য নির্বাচনী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে। তিনি বলেন, দু-এক দিনের মধ্যে তফসিল ঘোষণার ব্যাপারে জানা যাবে। তিনি আরো বলেন, নির্বাচন কমিশন ভোটগ্রহণের প্রস্তুতির জন্য ৪৫ দিন সময় হাতে রেখে জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে থাকে- যাতে কমিশন প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করতে এবং রাজনৈতিক দলগুলো ভালভাবে তাদের নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে পারে।
    সরকারি অর্থ ছাড়ের বিষয়ে কাজী রকিবউদ্দীন বলেন, সরকারি কাজ অর্থ ছাড়ের অভাবে বন্ধ থাকতে পারে না- কেননা বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ও সরকারি অর্থ ছাড় দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, তবে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর সরকারি অর্থ ছাড়ের ওপর প্রয়োজনীয় বিধি-নিষেধ আরোপ করা হবে।
    গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) নির্বাচনে অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে তিন বছর রাজনৈতিক দলের সদস্য থাকার বিধান বাতিল করা সম্পর্কে সিইসি রকিব বলেন, কমিশন যে আইন ব্যবহার করে থাকে সে আইন পরিবর্তন, সংশোধন ও বাতিল করা হলে কমিশনের মতামত চাওয়া হয়। তিনি বলেন, আমরা এ আইন সম্পর্কে আমাদের মতামত আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠাই। আইন মন্ত্রণালয় তা বাছাই-যাচাই করে সংসদে তা বিল আকারে পেশ করে। তিনি বলেন, সংসদে পেশ করা ওই বিলের ওপর আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। সংসদে ওই বিল পাস হওয়ার পর তা রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের মাধ্যমে আইন হিসেবে পরিগণিত হয়।
    নির্বাচনে অংশগ্রহণের সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবসরের পর তিন বছর সময় অতিবাহিত করার বিধান সংবিধানের চেতনার পরিপন্থী কিনা জানতে চাইলে সিইসি বলেন, এ স্পিরিটের কথা রাজনৈতিক দল এবং তাদের নির্বাচিত প্রতিনিধিরা জানাবেন। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে কোন বৈষম্য তৈরি বিষয়টিও জনগণ বিবেচনা করবে।