২০৪১’র মধ্যেই দেশ উন্নত বিশ্বের পাশে দাঁড়াবেঃপ্রধানমন্ত্রী

    0
    226

    আমারসিলেট24ডটকম,০৪জুনঃ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সরকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ডিজিটাল জ্ঞানসম্পন্ন তরুণদের হাত ধরে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। ২০২১ সালেরমধ্যে একটি মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের মানুষকে কারোকাছে হাত পাততে হবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৪ সম্মেলনে উপস্থিতসবাইকে আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। ডিটিজাল বাংলাদেশ গড়ার দৃপ্ত পথেবাংলাদেশ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত বিশ্বেরপাশে দাঁড়াবে।
    প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, গাজীপুর, যশোর, সিলেট ও রাজশাহীতেহাইটেক পার্ক স্থাপনের কার্যক্রম চলছে। পর্যায়ক্রমে প্রত্যেক বিভাগ ও জেলায়পর্যায়ক্রমে হাইটেক পার্ক করে দেয়া হবে। থ্রি-জি চালু হয়ে গেছে। ফোর-জিচলে আসবে অচিরেই। এ সময় ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৪ তথ্যপ্রযুক্তির অগ্রযাত্রাকেআরও বেগবান করবে বলেও আশা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী।
    আজ বুধবার বেলাসাড়ে ১১টার দিকে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বিনিয়োগ আকর্ষণ ওমেধা অন্বেষণসহ তথ্য প্রযুক্তির প্রচার, প্রকাশ এবং অভিজ্ঞতা বিনিময়ের জন্যআয়োজিত ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৪’র (মেলা) ৪ দিনব্যাপী সম্মেলনের উদ্বোধনীঅনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।
    প্রধানমন্ত্রী এও বলেন,আমরা বাংলাদেশ হাইটেকপার্ক কর্তৃপক্ষ গঠন করেছি। এর মাধ্যমে সারা দেশে হাইটেক পার্ক, সফটওয়্যারটেকনোলজি পার্ক এবং আইসিটি ইনকিউবেটর তৈরির প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগের জন্য প্রণোদনা দেয়া হচ্ছে জানিয়ে সরকার। তিনিবলেন, এ খাতকে ফার্স্ট সেক্টর হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। ২০১৫ সালের জুনপর্যন্ত সফটওয়্যার ও আইটি ব্যবসাকে আয়কর মুক্ত রাখা হয়েছে। সফটওয়্যারআমদানি ও উৎপাদন পর্যায়ে ভ্যাট মওকুফ করা হয়েছে।
    তিনি বলেন, ১৯৯৬সালে ক্ষমতা নেয়ার পর আমরা তথ্যপ্রযুক্তি প্রসারে প্রথম উদ্যোগ নেই।প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের নিয়ে টাস্ক ফোর্স গঠন করি। কমিটির সুপারিশ বাস্তবায়নকরি। কম্পিউটার ও আইটি যন্ত্রপাতি আমদানি শুল্কমুক্ত করি। মানুষ কম্পিউটারকিনতে ও ব্যবহার করতে আগ্রহী হয়।
    তথ্যপ্রযুক্তিতে পিছিয়ে যাওয়ারক্ষেত্রে বিএনপি সরকারকে দায়ী করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৯১ সালের বিএনপিসরকার প্রায় বিনামূল্যে আন্তর্জাতিক সাবমেরিন ক্যাবল নেটওয়ার্কের সঙ্গেযুক্ত হওয়ার সুযোগটি হাতছাড়া করে। তখন অজুহাত তোলা হয়, এর সাথে যুক্ত হলেনাকি দেশের সব তথ্য পাচার হয়ে যাবে। ফলে দেশ বিশ্বের সাথে যুক্ত হওয়ার সহজসুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়।
    প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রযুক্তি ব্যবহার করে দেশকেএগিয়ে নেয়া সরকারের লক্ষ্য। ২০০১ ইং সালে টেলিযোগাযোগ আইন প্রণয়ন করেছেআওয়ামী লীগ সরকার। ২০১০ইং সালে টেলিযোগাযোগ আইনকে সংশোধন করে যুগোপযোগী করাহয়েছে। এই সেবাকে জবাবদিহির আওতায় আনা হয়েছে। নিরবচ্ছিন্ন ও নির্ভরযোগ্যইন্টারনেট সংযোগ নিশ্চিতে দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের উদ্যোগ নিয়েছি।৬টি ইন্টারন্যাশনাল টেরিস্ট্রিয়াল ক্যাবল লাইসেন্স দেয়া হয়েছে। এতেব্যান্ডউইথড এর দাম কমেছে। এ সময় দেশের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতেরসুষ্ঠু বিকাশে আইসিটি নীতিমালা, আইসিটি আইন, তথ্য নিরাপত্তা গাইডলাইন, তথ্যঅধিকার আইন প্রণয়ন করা হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীডিজিটাল স্বাক্ষরের মাধ্যমে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৪ উদ্বোধনের পর বিভিন্নস্টল ঘুরে দেখেন।

    উল্লেখ্য,বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আজ বুধবারসকালে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন তথ্য ওযোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অফ সফটওয়্যার এন্ডসার্ভিসেস (বেসিস) এ মেলার আয়োজন করেছে।