নড়াইলে অধ্যক্ষ হেনস্তার ঘটনায় এক শিক্ষক ও ছাত্রত্ব বাতিল

0
310
নড়াইলে অধ্যক্ষ হেনস্তার ঘটনায় এক শিক্ষক ও ছাত্রত্ব বাতিল
নড়াইলে অধ্যক্ষ হেনস্তার ঘটনায় এক শিক্ষক ও ছাত্রত্ব বাতিল

সুজয়  বকসী.নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইল সদরের মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ হেনস্তার ঘটনায় কলেজের এক শিক্ষককে এবং কলেজ পরিচালনা পরিষদকে কারণ দর্শানো নোটিশ দিয়েছে জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়।

এছাড়া এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে খুলনা সরকারি ব্রজলাল (বিএল) কলেজের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ৪র্থ বর্ষের ছাত্র মো. রহমাতুল্লাহ রনির ছাত্রত্ব বাতিল করা হয়েছে।

জাতীয় বিশ^বিদ্যালয় বুধবার (৬জুন ) রাতে ২২৯তম সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মশিউর রহমান। সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ঘটনার দিন নেতিবাচক ভূমিকা রাখায় মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ের সহকারি অধ্যাপক আক্তার হোসেন কিংকু এবং এ ঘটনায় নির্লিপ্ততার জন্য কলেজ পরিচালনা পরিষদকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে কেন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না-সে মর্মে দ্রুত সময়ের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এছাড়া অধ্যক্ষ হেনস্তার ঘটনায় জাতীয় বিশ^বিদ্যালয় ২৮জুন তদন্ত কমিটি গঠন করে এবং তদন্ত কমিটি সিন্ডিকেট সভায় ওই তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন জমা দেয়। তদন্ত কমিটির প্রধান ছিলেন বিএল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক শরীফ আতিকুজ্জমান। বৃহস্পতিবার (৭জুলাই) জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ের (জনসংযোগ দপ্তর) পরিচালক মো. আতাউর রহমান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এ প্রসঙ্গে মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের সহকারী অধ্যাপক আক্তার হোসেন কিংকু বলেন, শোকজের বিষয়টি শুনেছি। এখনও কোন চিঠি পাইনি। তিনি বলেন, চিঠি পেলে অবশ্যই দ্রুত সময়ের মধ্যে জবাব দেব।

 মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজ পরিচালনা পরিষদের সভাপতি অ্যাডঃ অচিন চক্রবর্ত্তী বলেন, শোকজের বিষয়টি শুনেছি, তবে এখনও কোনো কাগজপত্র পাইনি। চিঠি পেলে জবাব দেওয়া হবে।

অধ্যক্ষ হেনস্তার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সদর থানার ওসি (চলতি দায়িত্বে) মো. মাহামুদুর রহমান বলেন শাওন, মনিরুল, রিমন ও রনির ৩দিনের রিমান্ড শেষে বৃহস্পতিবার (৭জুলাই) আদালতে হাজির করা হয়েছে। পরে তাদের হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়া সর্বশেষ গ্রেফতার হওয়া নূর নবীর বিরুদ্ধে ৩দিনের রিমান্ড শুরু হয়েছে। শুক্রবার (৮জুলাই) পর্যন্ত এ রিমান্ড চলবে। তিনি খুব শীঘ্রই মামলার অগ্রগতি সম্পর্কে ভালো খবর দিতে পারবেন বলে জানান।

প্রসঙ্গত, সদরের বিছালী ইউনিয়নের মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র রাহুল দেব রায় ফেসবুকে মহানবী (সাঃ)কে নিয়ে অবমাননাকর পোস্ট দেওয়ায় গত ১৮জুন কলেজে উত্তেজনা দেখা দেয়। এ সময় বিক্ষুব্ধ ছাত্র ও স্থানীয় লোকজন শিক্ষকদের ৩টি মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেয় এবং অভিযুক্ত ছাত্র ও কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ^াসকে জুতার মালা গলায় পরিয়ে পুলিশের সামনে ক্যাম্পাস থেকে বের করে দেয়। পরে অভিযুক্ত রাহুলকে গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়। ঘটনাটি তদন্তে রবিবার (২৬ জুন) অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জুবায়ের হোসেন চৌধুরীর নেৃতৃত্বে এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ রিয়াজুল ইসলামের নেতৃত্বে  দু’টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ইতিমধ্যে প্রত্যেক কমিটি তাদের তদন্ত রির্পোট পেশ করেছে।

এ দিকে মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের অধ্যক্ষকে লাঞ্চিত, শিক্ষকদের মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেওয়া এবং পুলিশের কাজে বাঁধা দেওয়ার ঘটনায়  সোমবার (২৭ জুন) রাতে পুলিশ বাদি হয়ে সদর থানায় ১৭০-/১৮০ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করে। এ পর্যন্ত ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।