নবীগঞ্জে কাগজে-কলমে প্রাথমিক বিদ্যালয় থাকলেও বাস্তবে নেই!

0
140

নূরুজ্জামান ফারুকী,বিশেষ প্রতিনিধিঃ নবীগঞ্জের পূর্ব জাহিদপুর গ্রামে মাষ্টার চৌর চৌধুরীর নামে ভুয়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের রেজিষ্ট্রেশন বাতিল ও ভূয়া সভাপতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানানো হয়েছে।
নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট অভিযোগ প্রদান করেছেন পূর্ব জাহিদপুর গ্রামের তাহিদ মিয়া। এর প্রেক্ষিতে গত ১৯ জানুয়ারী ঘটনাস্থল পরিদর্শন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহীন দেলোয়ার। পরিদর্শনকালে তিনি ওই গ্রামে মাষ্টার চৌর চৌধুরীর নামে ভুয়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কোন অস্তিত্ব পাননি বলে জানা গেছে।
১৮৯৩ নং দলিলের মাধ্যমে ৯ এপ্রিল ২০০০ইং ৩৩ শতক ভূমি স্কুলের নামে দান করেন ওই গ্রামের তাজুল ইসলাম শামছু মিয়া, আব্দুস সোবহান, আব্দুর রহিম বকাচা মিয়া ও ফরিদ উদ্দিন ওরপে গেদা মিয়া। পরবর্তীতে তাজুল ইসলাম তার আপন ছোট ভাই শামিমউর রহমানকে ২০০৩ সনের ২১ মার্চ ৪৭১৫ দলিলের মাধ্যমে তার দানকৃত জমির চেয়ে অধিক জমি বিক্রি করায় তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে আবেদন করেন পূর্ব জাহিদপুর গ্রামের মৃত আব্দুর রহিম ওরফে কাঁচা মিয়ার ছেলে মোঃ তাহিদ মিয়া।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত ১৯ জানুয়ারী সরেজমিন পরিদর্শন করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহীন দেলোয়ার। পরিদর্শন কালে দেখা যায়, যে জমিতে স্কুল বলে দাবি করে আসছে, বাস্তবে দুইটি পরিবারের বসতভিটা রয়েছে এই জমিতে। উপস্থিত গ্রামবাসীকে স্কুল সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে তারা বলেন, পূর্ব জাহিদপুর গ্রামে কখনোই কোন স্কুল ছিলনা বা এখনও নেই। গ্রামের ছেলে মেয়েরা অনেক কষ্ট করে পাশের গ্রামের স্কুলে লেখাপড়া করে। তবে একটি জালিয়াতি চক্র একটি স্কুলের নামে কিছু জমি দিয়ে পাশের গ্রামের চৌর চৌধুরীর নামে একটি স্কুল নামকরন করেন। পরবর্তীতে এখানে কোন স্কুল স্থাপন না করে দানকৃত জমি পুনরায় দলিলের ১নং দাতা মোঃ সমছু মিয়া তার আপন ছোট ভাই মোঃ শামিমউর রহমানের কাছে বিক্রি করে দেন।
অন্য দিকে পূর্ব জাহিদপুর বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে এই জালিয়াত চক্র, ভুল তথ্য প্রদান করে নবীগঞ্জ-বাহুবল-১ আসনের সংসদ সদস্য শাহ নেওয়াজ মিলাদ গাজীর কাছ থেকে স্কুলের জন্য একটি ডিও পাশ করিয়ে নেন। পরবর্তীতে সংসদ সদস্য শাহ নেওয়াজ মিলাদ গাজীও ডিও বাতিল করেন। এর আগে প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সরেজমিন পরিদর্শন করে প্রতিবেদন জমা দেন এবং প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন পূর্ব জাহিদপুর গ্রামে চৌর চৌধুরী নামে কোন বিদ্যালয় নেই এবং পূর্ব জাহিদপুর গ্রামের কোমলমতি শিশুরা পার্শবর্তী কনখারিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় গিয়ে লেখা পড়া করে আসছে ।